বরিশাল-ঢাকা নৌরুটের ঈদের আগাম টিকেট বিক্রি শুরু

জুলাই ২৭ ২০১৯, ১০:৪৬

ঈদুল আজহা ঘিরে দীর্ঘ ছুটির ‘ফাঁদে’ পড়ছে দেশ। তাই বিগত সময়ের মতো এবারও সড়ক, রেল, নৌ ও আকাশপথে যাত্রীদের চাপ থাকবে। বিশেষ করে দক্ষিণাঞ্চলে নৌপথে যাত্রীদের চাপ একটু বেশিই থাকবে।

আর যাত্রীদের বাড়তি চাপ সামাল দিতে নৌপথে লঞ্চ ও সরকারি স্টিমার-জাহাজের স্বাভাবিক সার্ভিসের পাশাপাশি এবারও থাকছে স্পেশাল সার্ভিস। ঈদ স্পেশাল সার্ভিসকে ঘিরে এরইমধ্যে বিলাসবহুল ও যাত্রীবহুল বরিশাল-ঢাকা নৌরুটে যাত্রীবাহী লঞ্চগুলোতে আগাম টিকিট বিক্রির কার্যক্রম হাতে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এরইমধ্যে কোনো কোনো লঞ্চ কর্তৃপক্ষ বিগত দিনের ধারাবাহিকতা বজায় রেখে কেবিন ও সোফার জন্য যাত্রীদের কাছ থেকে চাহিদাপত্র (স্লিপ) নিয়ে নিয়েছেন। এখন চলছে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ। যা শেষ হলে যাত্রীদের হাতে তুলে দেওয়া হবে কাঙ্ক্ষিত টিকিট। আবার অনেক লঞ্চ কর্তৃপক্ষ বিগত দিনের ধারবাহিকতা বজায় রেখে সরাসরি আগে এলে আগে পাবেন ভিত্তিতে কেবিন ও সোফার টিকিট বিক্রি শুরু করে দিয়েছে।

তবে বেশিরভাগ লঞ্চের অগ্রিম টিকিট আগামী ১ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) থেকে বিক্রি শুরু হবে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ যাত্রীবাহী নৌপরিবহন সংস্থার (যাপ) কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও সুন্দরবন নেভিগেশনের স্বত্ত্বাধিকারী সাইদুর রহমান রিন্টু।

তিনি বলেন, স্পেশাল সার্ভিসের বিষয়ে এখনো পুরোপুরিভাবে সিদ্ধান্ত হয়নি। আগামী ১ অথবা ২ আগস্ট ঢাকায় লঞ্চ মালিকদের সভা হওয়ার কথা রয়েছে, সেখানে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে। তবে যেহেতু ১২ আগস্ট (সোমবার) ঈদুল আজহা, তাই ৮ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) থেকে বিশেষ সার্ভিস শুরুর সম্ভাবনাই বেশি, যা ঈদের পর ২০ জুলাই পর্যন্ত বহাল থাকতে পারে। তাই ১ আগস্ট থেকে সুন্দরবন নেভিগেশন কোম্পানির লঞ্চগুলোর বিশেষ সার্ভিসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হবে।

অপরদিকে বরিশাল-ঢাকা নৌ-রুটের সুরভী লঞ্চের কাউন্টারের দায়িত্বে থাকা ফারহান নামক ব্যক্তি জানিয়েছেন, ঈদুল আজহা উপলক্ষে অগ্রিম টিকিটের আবেদন গত ২৩ জুলাই সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে যাচাই বাছাইও প্রায় শেষ। আশা করা যাচ্ছে ২৭ জুলাই (শনিবার) থেকে ভোক্তা পর্যায়ে টিকিট পৌঁছে দেওয়া হবে।

এদিকে সালমা শিপিং লাইন্সে ব্যবস্থাপনা পরিচালক মঞ্জুরুল আহসান ফেরদৌস বলেন, আগের নিয়মেই আমরা কীর্তনখোলা লঞ্চের ঈদ সার্ভিসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি কার্যক্রম শুরু করেছি। যিনি আগে আসবেন তিনিই টিকিট আগে পাবেন, স্টক শেষ হওয়া পর্যন্ত।

এদিকে ঈদুল আজহায় বরিশাল-ঢাকা নৌ রুটে নতুন করে যুক্ত হচ্ছে এমভি কুয়াকাটা-২ নামের আরো একটি বিলাসবহুল লঞ্চ। ঢাকায় যার চূড়ান্ত ট্রায়াল দেওয়া হয়েছে শুক্রবার (২৬ জুলাই) বিকেলে। আগস্টের প্রথম দিকেই লঞ্চটি নৌবহরে যুক্ত করার আশা প্রকাশ করেছেন এর স্বত্ত্বাধিকারী আবুল কালাম খান।

অপরদিকে বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিঠু সরকার বলেন, ২৮ জুলাই ঢাকায় নৌপরিবহন অধিদপ্তরে ঈদুল আজহা সম্পর্কিত বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ওই বৈঠক থেকেই বিশেষ সার্ভিসসহ সার্বিক বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

তিনি বলেন, বরিশাল-ঢাকা নৌরুটে বর্তমানে দিবা সার্ভিসের ওয়াটার বাসসহ মোট ২৩টি নৌযান নিয়মিত চলাচল করছে। তবে ঈদুল আজহায় এই রুটে নতুন আরো একটি লঞ্চ যুক্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেটি হলো এমভি কুয়াকাটা-২।

এদিকে রাষ্ট্রীয় নৌপরিবহন সংস্থা বিআইডব্লিউটিসি’র সহকারী মহাব্যবস্থাপক সৈয়দ আবুল কালাম আজাদ বলেন, আগের মতো এবারও ঢাকা-মোড়েলগঞ্জ ভায়া বরিশাল নৌরুটে সংস্থার ৫টি নৌযানে বিশেষ সার্ভিস দেওয়া হবে। যা শুরু হবে ৮ আগস্ট থেকে এবং শেষ হবে ঈদের পর এক সপ্তাহ পর্যন্ত। বিশেষ সার্ভিসের টিকিট বিক্রি শুরু হবে ১ আগস্ট থেকে। যা ঢাকা থেকে বা অনলাইনের মাধ্যমে বুকিং দেওয়া যাবে।