বেতাগীর হোসনাবাদের সড়কে গর্ত ও খানাখন্দে বেহাল দশা

জুলাই ০১ ২০২০, ১০:১৬

বেতাগী প্রতিবেদক॥ বরগুনার বেতাগী উপজেলার বেতাগী-বাসন্ডা-হোসনাবাদ ৪ কিলোমিটার সড়কে দেড় শতাধিকের বেশি গর্ত তৈরি হয়েছে। আঞ্চলিক সড়কে ভারি পণ্যবাহী ট্রাক, পিকআপ ভ্যানের মাধ্যমে জলিসা বাজারে মালামাল সরবরাহ করায় অর্ধ শতাধিক বড় বড় গর্ত তৈরি হয়ে যান চলাচল বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সরেজমিনে ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বেতাগী সদর ইউনিয়নের বাসন্ডা পুলের হাট ও মির্জাগঞ্জ উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইউনিয়নের সাথে সংযুক্ত বেড়েরধন নদীর দক্ষিণ পাড় থেকে শুরু হয়ে ৪ কিলোমিটার দক্ষিণে হোসনাবাদ ইউনিয়নের জলিশা বাজারে মিলিত হয়েছে। হোসনাবাদ ইউনিয়নের সাথে যোগাযোগের একমাত্র প্রধান সড়ক এটি। এলজিইডি ২০১৪ অর্থবছরে এই সড়কটি পুনঃনির্মাণ করেন। এ সড়কে বর্ষাকালের শুরুতে ছোট বড় গর্ত দেড় শতাধিক এবং খানাখন্দে মরণফাঁদে পরিনত হয়েছে। যান চলাচলে অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে।

স্থানীয় অনেকে অভিযোগ করেন, ২০১৪ সালে সড়ক পুনঃসংস্কারে নিন্মমানের কাজ করায় সড়কটি বর্তমানে গর্ত ও খানাখন্দদে বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। নিন্মমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার করার কারণে বর্তমানে যান ও জনসাধারণের চলাচলে অবর্ণনীয় দুর্ভোগে পরিনত হয়েছে।

বর্ষার সময় স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা ও জনসাধারণের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। জলিসা বাজারের মালামাল সরবরাহে দুঘর্টনাও ঘটছে মাঝে মধ্যে। পণ্যবাহী ট্রাক উল্টে পড়ার ঘটনা ঘটছে।

এ বিষয় স্থানীয় বাসিন্দা আসাদুজ্জামান রিপন বলেন, শীঘ্রই পুন:নির্মাণ বা সংস্কার না করা হলে এই সড়কটি দিয়ে সকল যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ইউপি সদস্য মনিরুজ্জামান জামাল বলেন, সড়কে গাড়ি চলাচলের সময় হঠাৎ গর্ত হয়ে ধসে পড়ে। এর ফলে সড়কে গাড়ি চলাচল করতে পারছে না।

সংশ্লিষ্ট হোসনাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: খলিলুর রহমান খান বলেন, এলজিইডি ও উপজেলা পরিষদের সাথে কথা বলেছি। প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ হলে সড়ক পুনঃসংস্কার করা হবে।

এ ব্যাপারে বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: রাজীব আহসান বলেন, উপজেলা পরিষদের গুরুত্বপূর্ণ তহবিল থেকে যথাসাধ্য সহায়তা করে অতিশীঘ্রই বড় গর্তগুলো মেরামত করে দেয়া হবে এবং একইসাথে সংশ্লিষ্ট দফতরকে সড়কটি পুনঃসংস্কারের জন্য ব্যবস্থা নিতে বলা হবে।